মিষ্টি ? নাকি সংসার ?নাকি মিষ্টি সংসার ?

স্বাস্থ্য সচেতন নারী-পুরুষ চিনি খান মেপে মেপে৷

কিন্তু সাম্প্রতিক এক গবেষণা বলছে, রক্তে চিনির অভাব সুখের সংসারেও জ্বেলে দিতে পারে অশান্তির আগুন৷

১০৭ জোড়া বিবাহিত দম্পতির ওপর গবেষণা চালিয়ে ওহাইও স্টেট ইউনিভার্সিটির একদল বিজ্ঞানী দেখতে পেয়েছেন, রক্তে শর্করার পরিমাণ যখন কমে যায়, সঙ্গী বা সঙ্গীনীর প্রতি রাগ, ক্ষোভ ও আক্রমণাত্মক মনোভাব ততো বেশি মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে৷

এ গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের টানা ২১ দিন প্রাতরাশ ও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে রক্তে শর্করার পরিমাণ মেপে দেখতে বলা হয়৷ আর প্রত্যেককে দেয়া হয় একটি করে ভুডু পুতুল, সঙ্গে ৫১টি কাঁটা৷ এই ভুডু পুতুল আসলে সঙ্গী বা সঙ্গীনীর প্রতীক৷ অংশগ্রহণকারীদের বলা হয়, প্রতিদিন তারা স্বামী বা স্ত্রীর প্রতি যতটা রাগ বা ক্রোধ অনুভব করেছেন, সে অনুযায়ী অতি গোপনে কাঁটা বিঁধিয়ে দিতে হবে ওই পুতুলের গায়ে৷

২১ সপ্তাহ পর প্রত্যেকের রক্তে চিনির পরিমাণ এবং ভুডু পুতুলে কাঁটার সংখ্যা বিশ্লেষণ করে দেখা যায় যে, যেদিন শর্করার পরিমাণ যত কম, পুতুলে কাঁটার সংখ্যা তত বেশি৷ এই গবেষণা প্রতিবেদনের অন্যতম লেখক ব্র্যাড বুশম্যান বলেন, ‘‘এমনকি যারা সুখি দাম্পত্য জীবনের কথা বলেছেন, রক্তে চিনি কম থাকলে তারাও রাগ দেখিয়েছেন পুতুলের ওপর৷”

এখানেই শেষ নয়৷ ভুডু পুতুলের পরীক্ষার পর এই অংশগ্রহণকারীদের একটি গবেষণাগারে নিয়ে চালানো হয় আরেকটি পরীক্ষা৷ দু’জনকে পাশাপাশি দুটি আলাদা ঘরে রেখে সঙ্গী ও সঙ্গীনীর বিপক্ষে একটি কম্পিউটার গেম খেলতে বলা হয়৷ একজন জিতে গেলে তার পরাজিত সঙ্গী বা সঙ্গীনী কতটা চিৎকার করে ক্ষোভ প্রকাশ করেন, হেডফোনে তাও খেয়াল রাখতে বলা হয়৷

অবশ্য গবেষকরা যে ব্যবস্থা করে রেখেছিলেন, তাতে প্রত্যেক অংশগ্রহণকারী আসলে খেলেছেন কম্পিউটারের বিরুদ্ধে৷ এমনভাবে এই প্রোগাম তৈরি করা হয়েছিল, যাতে প্রত্যেকেই সমান সংখ্যক বার জয়ী হতে পারেন৷

বিনাচিনির রাগতত্ত্ব মিলে গেছে এখানেও৷ গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন, যাদের রক্তে শর্করা কম, হেরে গিয়ে তারাই সবচেয়ে বেশি রাগ ঝেরেছেন৷ আর আগের গবেষণায় যারা ভুডু পুতুলে বেশি কাঁটা বিঁধিয়েছেন, তাদের মধ্যেই হেরে গিয়ে ক্ষেপে যাওয়ার প্রবণতা বেশি৷ বুশম্যান বলেন, ‘‘রক্তে শর্করা কম থাকলে আক্রমণাত্মক মনোভাবও যে বেড়ে যায় – এটা তারই নির্দেশক৷”তিনি বলেন, গ্লুকোজ বা শর্করা মস্তিষ্কে জ্বালানির মতো কাজ করে৷ মস্তিষ্কের ওজন মানবদেহের মোট ওজনের মাত্র ২ শতাংশ হলেও প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে শরীরে যাওয়া শর্করার ২০ শতাংশ ওই মস্তিষ্কই খরচ করে৷ রাগ বা ক্রোধ সামলাতে তাৎক্ষণিকভাবে নিজের ওপর যে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হয়, তাতে মস্তিষ্কের বাড়তি শক্তি প্রয়োজন হয়৷ এই সময়টায় চিনিতে টান পড়লেই বাঁধে গোল৷

বুশম্যান বলেন, ‘‘আমাদের পরামর্শ খুব সাধারণ, তবে কাজের৷ পেটে ক্ষুধা নিয়ে স্বামী বা স্ত্রীর সঙ্গে কোনো গুরুতর বিষয়ে আলোচনায় না যাওয়াই ভালো৷”-এএফপি।

লেখক-
তামান্না তাহসিন আহমেদ
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান ।

2,967 total views, 2 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *