ফল ও সবজির দারুণ এক সালাদের খোঁজে

ফল ও সবজির দারুণ এক সালাদের খোঁজে- ওল কপি সালাদ

সালাদ খেতে সবাই অনেক পছন্দ করে। সালাদের উপকারিতায় অনুপ্রাণিত হয়ে কিংবা স্বাদে প্রিয় হওয়ার কারণে যেভাবেই হোক না কেন সালাদ খেতে আমাদের আপত্তি নেই একেবারে! আজ হাজির হয়েছি অসাধারণ এক সালাদ নিয়ে। চলুন জেনে নিই এর তৈরি পদ্ধতি এবং গুনাগুনও-

প্রয়োজনীয় উপকরণঃ

ক্রম উপকরনের নাম পরিমান
১. আপেল ১টি বড় বা ২টি ছোট।
২. বিটরুট ২টি ছোট।
কাঁচা পেঁয়াজ ২টি।
 ৪. ওল কপি ১টি বড়।
৫. লেবুর রস স্বাদমতো
৬. ধনেপাতা স্বাদ মত
৭. লবণ ও মরিচ (স্বাদ মত)।
জলপাই এর তেল ১ টেবিল চামচ
৯. কড়া করে ভেজে নেয়া সূর্যমুখীর বীজ কয়েকটি
১০. একটি পনিরের কিউব করা টুকরো ৭৫ গ্রাম
১১. কমলার রস ২ চা চামচ
১২. কমলার নির্যাস (essence) ১ চা চামচ

সালাদ তৈরির উপায়ঃ

  1. একটি পাত্রে, কেটে নেয়া আপেল, ওলকপি, বিটরুট, ধনেপাতা ,কাঁচা পেঁয়াজ নিন।
  2. আরেকটি পাত্রে জলপাই এর তেল,মরিচ, লবণ, লেবুর রস, কমলার রস ও কমলার নির্যাস নিয়ে ভালো করে মাখিয়ে নিন।
  3. এবার একসাথে সব উপকরণ মিশিয়ে নিন।
  4. এরপর ড্রেসিং বা টপিং হিসেবে ব্যবহার করুন কড়া করে ভেজে নেয়া সূর্যমুখীর বীজ ও দেশী বা বিদেশী পনির।

এবার আসি পুষ্টিগুণ এর কথা নিয়ে-

এই সালাদটির বিশেষত্ব কোথায় ধরতে পেরেছেন? এখনও পারেন নি! বলেই দেই তবে। খেয়াল করে দেখুন প্রধান উপকরণগুলোর সবই আমরা মোটামুটিভাবে সালাদ বানাতে ব্যবহার করি। ফ্রূট সালাদ কিংবা ভেজিটেবল সালাদ যেটাই হোক না কেন! তবে কখনো শুনেছেন সালাদে ওলকপির ব্যবহার এর কথা?  তাই ওলকপি- এই বিশেষ উপাদানটির বিশেষ গুণ গুলো নিয়ে বলা যেতেই পারে-

১.ওজন কমায়।

২.শরীরে শক্তি প্রদান করে।

৩.হজম শক্তিকেও বৃদ্ধি করে।

৪.রক্তের লোহিত কণিকা বৃদ্ধি করে, ফলে রক্তস্বল্পতা রোধ করা যায়।

৫.রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে।

৬.শরীরের বিপাক ক্রিয়া বাড়ায়।

৭.চোখের সুস্থতাও বজায় রাখে।

কী! অবাক হচ্ছেন তো? ভাবছেন-গ্রামের মেঠোপথের ধারে পড়ে থাকা অবহেলার এই সব্জির গুণের কথা আগে কেন জানেন নি! কখনও যদি বাচ্চারা খেতে না চায় তবে এভাবে তৈরি করা সালাদ ওদের  মন খুশি করে দেবে আর খাওয়াতেও রুচি ফিরিয়ে আনবে অনায়াসে। তাই আজই বানিয়ে দেখতে পারেন মজার এই রেসিপিটি।

বিশেষ ক্ষেত্রে,

  • যাঁদের কোলেস্টেরল বেশী, তারা সালাদে পনির বাদ দিয়ে খাবেন এবং ট্রাইগ্লাইসেরাইড এর মাত্রা রক্তে বেশী হলে সালাদে তেল ব্যবহার করবেন না ;
  • যাঁদের ক্রিয়েটিনিন (কিডনীর একটি উপাদান)-এর মাত্রা (১.৫ বা এর বেশী) হলে সালাদে লেবুর রস, কমলার রস, ওলকপি, কমলার নির্যাস, সূর্যমুখীর বীজ বাদ দিয়ে খাবেন এবং কাঁচা মরিচ খেলেও তা বীজ ফেলে খাবেন; সকল প্রকার(টক ফল বাদে ) ফলের খোসা ও বীজ ফেলে খাবেন;
  • ডায়াবেটিক রোগীরা সালাদে বীটরুট বাদ দিয়ে সালাদ বানাবেন কারন বীট মূল জাতীয় সবজি হওয়ায় তা রক্তে গ্লুকোজের পরিমান বাড়াতে সাহায্য করে।

এখন থেকে থাকুন পুষ্টিবার্তার সাথে। নিত্যনতুন পুষ্টিতথ্য প্রাপ্তির মাধ্যমে নিজেকে সুস্থ রাখুন।
সকলের সুস্বাস্থ্যের কামনায় পুষ্টিবার্তার পথচলা।

লেখক
তামান্না তাহসিন আহমেদ
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ।

সম্পাদক-
শাহ্রুখ নাজ রহমান
পুষ্টিবার্তা

 

 

3,007 total views, 4 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *