ভরপেট খাবার পর তীব্র পেট ব্যাথা!

হঠাৎ করেই ভর পেট খাবার পর প্রতীকের ভীষণ পেটে ব্যাথা হচ্ছে। ব্যাথার ঔষুধ ও খাওয়ানো হয়েছে
কিন্তু ব্যাথা কিছুতেই কমছে না।শেষ পর্যন্ত ডাক্তারের কাছে যেতেই হলো। পরীক্ষা
নিরীক্ষা করে ডাক্তার জানালেন প্রতীকের প্যানক্রিয়াটাইটিস হয়েছে।প্রতীক বুঝতে
পারলো না এটা আবার কেমন রোগ….কি হয় এই রোগে?? খুব জটিল? নাকি
সহজেই এর চিকিৎসা করানো যাবে। কি খেতে পারবে, কি খেতে পারবে না তাও
বুঝতে পারছে না।
এই প্যানক্রিয়াটাইটিস বা অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ টা আমরা প্রায়ই দেখতে পাই।আমাদের অনেকেরই ধারণা নেই অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ ব্যাপারটা আসলে  কি?
অগ্ন্যাশয় হচ্ছে এমন এক অঙ্গ যা কিনা পেটের ভিতর থাকে একদম পাকস্থলী এর পিছনে ডিওডেনাম বা ক্ষুদ্রান্ত্রের এর সাথে যুক্ত অবস্থায়। অগ্ন্যাশয় অঙ্গটাই এমন যেটাকে ভেঙে আমরা বলতে পারি যেই অঙ্গ আগুন সয় বা সহ্য করে। আমরা জানি আগুনের কাজ আসলে জ্বালানো। অগ্ন্যাশয়ের আগুন ও আসলে সেই কাজই করে।আসল কথা হলো আগুন বলছি যাকে সেগুলো হলো এনজাইম বা পাচক রস।

3D Illustration of Human Body Organs Anatomy (Pancreas)

এই পাচক রস গুলোর কাজ হচ্ছে খাবার পরিপাকে সাহায্য করা।যখনি এই পাচক রস গুলো ঠিক মতো কাজ করতে পারে না তখনি পেটে প্রচন্ড ব্যাথা অনুভূত হয় আর দেখা দেয় প্যানক্রিয়াটাইটিস।
কিভাবে বুঝবো প্যানক্রিয়াটাইটিস হয়েছে:
প্যানক্রিয়াটাইটিস হওয়ার প্রথম শর্তই হলো পেটে প্রচন্ড ব্যাথা হবে এবং সেই ব্যাথাটি আস্তে আস্তে বেড়ে পিঠের দিকে চলে যাবে।
এখন এই প্যানক্রিয়াটাইটিস রোগটিও দুই ধরণের হতে পারে-
১.এ্যাকিউট প্যানক্রিয়াটাইটিস ( হঠাৎ অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ)
২.ক্রনিক প্যানক্রিয়াটাইটিস ( দীর্ঘস্থায়ী অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ)
হঠাৎ অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ বা এ্যাকিউট প্যানক্রিয়াটাইটিস কি?
যদি হঠাৎ করেই অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ দেখা দেয় তাহলে সেটাই হবে এ্যাকিউট প্যানক্রিয়াটাইটিস।সাধারণত অতিরিক্ত মদ্যপান এবং পিত্তথলি তে পাথর হলে এ্যাকিউট প্যানক্রিয়াটাইটিস হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা থাকে। তবে আরো কিছু কারণেও এমনটা হতে পারে যেমন- রক্তে ক্যালসিয়াম এর পরিমাণ বেড়ে গেলে,রক্তে টিজি(Tg) বেড়ে গেলে,মাম্পস এর সমস্যা থাকলে, সম্প্রতি কিডনি ট্রান্সপ্লান্টেশন করলে, আবার অনেক ক্ষেত্রে কিছু কিছু ড্রাগস বা ঔষধ এর জন্যও এমন হতে পারে।
ক্রনিক প্যানক্রিয়াটাইটিস বা দীর্ঘস্থায়ী অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ কি?
দীর্ঘদিন ধরেই যদি অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ থেকে থাকে তাহলে তা দীর্ঘস্থায়ী প্যানক্রিয়াটাইটিস এ রূপ নেয়।এমন অবস্থায় পেটে ব্যাথার অবনতি হতে থাকে প্রতিনিয়ত। এই অবস্থার পেছনে মূলত দায়ী অতিরিক্ত মদ্যপান, শরীরের দূর্বলতা, সিস্টিক ফাইব্রোসিস (এমন একটি রোগ  যাতে ক্ষতিগ্রস্ত থাকে ফুসফুস ও অগ্ন্যাশয় এবং যেটি বংশগত রোগ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকে) ইত্যাদি।
প্যানক্রিয়াটাইটিস বা অগ্ন্যাশয় প্রদাহের লক্ষণ –
১.পেটের উপরের দিকের বাম পাশে প্রচন্ড ব্যাথা অনুভূত হওয়া।
২.কখনো কখনো এই পেটে ব্যাথাটি ছড়িয়ে পড়তে পারে পিঠ পর্যন্ত।
৩.অনেক সময় ভরপেট খাওয়ার পর পেটে অতিরিক্ত ব্যাথা অনুভূত হয়।
৪.বমি বা বমি বমি ভাব হওয়া।
৫.জ্বর (তাপমাত্রা হবে ৯৮.৫ ডিগ্রী ফারেনহাইট  এর বেশি)
৭. দ্রুত গতির নাড়ী স্পন্দন।
৮.পেট স্পর্শ করলে অস্বস্তি অনুভূত হওয়া।
৯.খাদ্যে অনীহা
উপরের লক্ষণ গুলোর মধ্যে যদি পাঁচটি বা ছয়টি লক্ষণ  আপনার মধ্যে দেখা দেয় তাহলে অতি দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করুন যাতে করে আপনি নিশ্চিত হতে পারেন যে আপনি প্যানক্রিয়াটাইটিসে আক্রান্ত কিনা।প্যানক্রিয়াটাইটিস হয়েছে কিনা জানবার উপায়-
প্যানক্রিয়াটাইটিসের লক্ষণ গুলোর মধ্যে সবচেয়ে পরিচিত হলো প্রচন্ড পেটে ব্যাথা।তবে আরো কিছু লক্ষণ ও যদি কারো শরীরে দেখা যায় তাহলে কিছু কিছু টেস্ট বা পরীক্ষার মাধ্যমে খুব সহজেই জানা সম্ভব যে তিনি অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহে আক্রান্ত কিনা। যেমন-
১.রক্তে ও মূত্রে অ্যামাইলেস পরীক্ষা
২.রক্তে লাইপেস পরীক্ষা
৩.রক্তে সিরাম ক্যালসিয়ামের পরীক্ষা
৪.পিত্তনালী সম্পর্কিত পরীক্ষা
৫.পেটের এবং বুকের এক্সরে করেও অনেক সময় নিশ্চিত হতে হয়।
মোটামুটি এই টেস্ট গুলো দিয়ে আমরা নিশ্চিত হতে পারি যে প্যানক্রিয়াটাইটিস বা অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহে কেউ আক্রান্ত হয়েছেন কিনা।
অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহের জটিলতা সমূহ-
অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহে শরীরে কিছু জটিলতা দেখা দিতে পারে যেমন:
১.অগ্ন্যাশয়ে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র তরল পূর্ণ  সিস্ট বা পকেট তৈরি হওয়া।
২.ইনফেকশন এবং শরীরের অভ্যন্তরে রক্তক্ষরণ
৩.কিডনি ফেইলিউর
৪.শ্বাসকষ্ট
৫.ডায়াবেটিস
৬.প্যানক্রিয়াটিক ক্যানসার
৭.এমনকি মৃত্যু ও হতে পারে
প্যানক্রিয়াটাইটিস হয়ে উঠতে পারে মারাত্মক প্রাণনাশক তাই এই রোগের সুচিকিৎসা হওয়া প্রয়োজন।প্যানক্রিয়াটাইটিসে করণীয়-
প্রথমেই বাদ দিতে হবে অতিরিক্ত মদ্যপান এবং ধূমপান। নিজের শরীরের অপুষ্টিজনিত সমস্যা গুলো সম্পর্কে জানতে হবে এবং সেগুলো সমাধানে অবশ্যই একজন পুষ্টিবিদ বা ডায়েটিশিয়ানের শরণাপন্ন হতে হবে। রক্তে সুগার বা শর্করার মাত্রা প্রতিনিয়ত মেপে দেখতে হবে এবং হাইপারগ্লাইসেমিয়া ও হাইপোগ্লাইসেমিয়া পরিহার করতে হবে।ডায়াবেটিস এবং কিডনি রোগ উভয়ই নিয়ন্ত্রনে সচেষ্ট হতে হবে। খাবার নির্বাচনে সচেতন হতে হবে।
প্যানক্রিয়াটাইটিস হলে কি খেতে হবে এবং কি খাওয়া বাদ দিতে হবে-
অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহে আক্রান্ত রোগীদের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় খাবার হলো উচ্চ প্রোটিন জাতীয় খাবার যেমন: মাছ,মাংস,ডিম,কলিজা,ডাল, বাদাম, বিচী ইত্যাদি।প্যানক্রিয়াটাইটিসে আক্রান্ত রোগীর দেহে অনেক অপুষ্টিজনিত সমস্যা থাকে তাই প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ যুক্ত খাবার খাওয়া উচিৎ

যেমন: লেবু,পেয়ারা, গাজর,আমলকি, জাম্বুরা,টমেটো, ব্রকলি, প্রায় সব ধরণের সবুজ শাকসবজি ইত্যাদি। এই রোগীদের প্রতিদিনের খাবারে যোগ করতে হবে কম শর্করা যুক্ত উচ্চ অাঁশ জাতীয় খাবার  এবং  লো ফ্যাট যুক্ত অর্থাৎ কম ফ্যাটযুক্ত  দুগ্ধজাত খাবার যেমন: বার্লি, লাল চালের ভাত,পপকর্ন, লাল আটার রুটি,গম,ভুট্টা, মটরশুঁটি, বাদাম,টকদই,পনির,দুধ ইত্যাদি। এছাড়া চর্বিযুক্ত মাছ, অলিভ ওয়েল,বাদাম ইত্যাদিও প্যানক্রিয়াটাইটিস রোগীর জন্য উপকারী।

এবার আসি কোন কোন খাবার পরিহার করতে হবে অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহে।মূলত, বেশী চর্বিযুক্ত খাবার যেমন: ডিমের কুসুম,ফাস্টফুড (বার্গার, স্যান্ডউইচ, হট ডগ,পিজ্জা ইত্যাদি), চকোলেট, মিষ্টি জাতীয় খাবার,মিষ্টি বিস্কুট,কেক,বেকারী জাতীয় খাবার,পেস্ট্রি, মাখন,ডালডা,চিপস,ফ্রাইড খাবার,ভাজাভুজি,নারকেল ইত্যাদি প্রায় সব ধরণের অতিরিক্ত তেলের  ও চর্বির খাবার অবশ্যই এই রোগীদের খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিতে হবে। এছাড়াও উচ্চ শর্করা যুক্ত খাবার বা রিফাইন্ড কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার যেমন : পাস্তা, নুডলস,কেক,পাই,বিস্কুট, কুকিজ,পাউরুটি ইত্যাদি ও পরিহার করে চলতে হবে।আর অবশ্যই মদ্যপান ও ধূমপান পরিহার করতে হবে।

প্যানক্রিয়াটাইটিস এমন কোনো জটিল রোগ নয় তবে অবশ্যই কিছু কিছু বিষয় মেনে চলতে হবে তাতে করে এই রোগ এর জটিলতা গুলো এতটা মারাত্মক আকার ধারণ করবে না। আর আপনি যদি প্যানক্রিয়াটাইটিস এর রোগী না হয়ে থাকেন তাহলে এই রোগকে দূরে রাখতে তিনটি ব্যাপার মেনে চলুন- ১.ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন
২. মদ কে না বলুন
৩. ধূমপান থেকে দূরে থাকুন।
সর্বোপরি নিজে সুস্থ সুন্দর ও রোগমুক্ত থাকুন।
লেখাঃ আয়েশা সিদ্দিকা মারিয়া
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ
সম্পাদনাঃঐশী অরিন
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ

7,673 total views, 2 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *