দাঁত ব্যাথায় মশলার যাদুকরী ব্যবহার!


“মশলা”- শব্দটি শুনলেই প্রথমে আমাদের চোখে বিভিন্ন ধরনের খাবারের ছবিই ভেসে ওঠে। আহা! কি লোভনীয় সেসব খাবার! যাই হোক, প্রাচীনকাল থেকে মশলা ও বিভিন্ন ধরনের হার্বসের ব্যবহার কিন্তু শুধুমাত্র রান্নাবান্নার কাজ পর্যন্তই থেমে নেই, বরং দৈনন্দিন নানাবিধ টুকটাক স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে শুরু করে গুরুতর রোগ বালাইয়ের ক্ষেত্রেও এর বিস্তার রয়েছে। আর আজকে আমরা আলোচনা করবো দাঁতের ব্যথায় মশলার জাদুকরী কিছু ব্যবহার নিয়ে।
দাঁতের ব্যথার কারণ আসলে অনেক। সাধারণত দাঁতের যথাযথ যত্নের অভাবে এর গঠন ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং এটি থেকেই ধীরে ধীরে শুর হতে পারে দাঁত ব্যথা যা পরবর্তীতে মারাত্নক আকার ধারণ করতে পারে যদি না আমরা একে সময়মত গুরুত্ব দেই। দাঁতে ব্যথা প্রারম্ভিক পর্যায়ে থাকতেই একে অবহেলা না করে দৌড় দিতে হবে ভালো একজন ডেন্টিস্টের কাছে, কেননা দাঁতের সমস্যাকে অবহেলা করা মানেই হলো সমস্যাকে হাতে ধরে বাড়তে দেওয়া।

Tooth Pain And Dentistry. Beautiful Young Woman Suffering From Terrible Strong Teeth Pain, Touching Cheek With Hand. Female Feeling Painful Toothache. Dental Care And Health Concept. High Resolution


তবে এর পাশাপাশি কিছু ঘরোয়া কৌশল বা টোটকা বা টনিকের ব্যবহার আপনাকে দাঁতের তীব্র ব্যথা থেকে দিতে পারে তাৎক্ষণিক আরাম। চলুন চটপট করে জেনে আসি দাঁতের ব্যথা উপশমে কিছু কার্যকরী মশলার ব্যবহারঃ
★লবণ পানিঃ ডেন্টিস্টগণ এটিকে ন্যাচারাল মাউথওয়াশ বলে থাকেন। দাঁতের ব্যথা উপশমে চমৎকার ভূমিকা পালন ছাড়াও এটি মাড়ির ফোলাভাব কমাতে, মুখের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে দুর্গন্ধ দূর করতেও সাহায্য করে।

কুসুম গরম পানিতে ১চা চামচ খাবার লবণ গুলিয়ে নিন। তারপর এই লবণ মিশ্রিত পানি দিয়ে কুলকুচি করুন। যাদের দাঁত ব্যাথার দীর্ঘ দিনের সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন অন্তত একবার এরূপ করতে পারেন।
★লবঙ্গঃ লবঙ্গে উপস্থিত ইউজিনল নামক ক্যামিক্যাল প্রপার্টি ব্যথানাশক হিসেবে কাজ করে। এটি মুখের দুর্গন্ধ তাড়াতেও কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

লবঙ্গ গুঁড়ো করে এর সাথে সামান্য অলিভ বা নারকেল তেল মিশিয়ে পেস্টের মত তৈরি করে আক্রান্ত দাঁতের উপর লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। লবঙ্গ গুঁড়োর সাথে লবন মিশিয়েও একই পদ্ধতিতে ব্যবহার করতে পারেন।
★ হলুদঃ হলুদে উপস্থিত কারকিউমিন, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও ব্যথানাশক উপাদান দাঁত ব্যথাসহ মাড়িফোলা কমাতে সাহায্য করে।

১/৪ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো নিয়ে তাতে সামান্য পানি মিশিয়ে পেস্টের মত তৈরি করে নিন। তারপর এই পেস্ট আক্রান্ত দাঁতের উপর পরিষ্কার আঙুল দিয়ে ব্রাশ করুন। কুসুম গরম পানি দিয়ে কুলকুচি করে নিন।
★ আদাঃ “আদা হলো ব্যথা সারাবার দাদা” – জ্বি আসলেই তাই৷ আদার রসে থাকা জিঞ্জেরল প্রদাহনাশক হিসেবে দারুন কাজ করে। পরিষ্কার আদার এক টুকরো যেই দাঁতে ব্যথা সেই দাঁত এর নিচে দিয়ে চিবোতে থাকুন, যদি ব্যথা বেশি হয় তাহলে আদার রস বের করে ওই দাঁতে লাগাতে পারেন।
★রসুনঃ রসুনকে বলা হয়ে থাকে ” Power house of medicine and flavour. ” এতে উপস্থিত সালফারভিত্তিক যৌগ অ্যালিসিন ও অন্যান্য অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রপার্টি শুধু দাঁতের নয় সম্পূর্ণ শরীরের সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রসুনের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুনের কারণে মাউথওয়াশ তৈরিতেও এর ব্যবহার রয়েছে।

দুই তিন কোয়া রসুন আধা চা চামচ লবনসহ থেতলে নিন। তারপর থেতানো রসুন ব্যথাযুক্ত দাঁতে লাগিয়ে নিন। কিছুক্ষণ রেখে কুসুম গরম পানি দিয়ে কুলি করে নিন।
★ পিঁয়াজঃ পিঁয়াজ আর দাঁতের যত্ন??? আজ্ঞে হ্যা। পিঁয়াজে উচ্চমাত্রায় সালফার ছাড়াও আছে ফাইটোক্যামিকেল, ফ্ল্যাভোনয়েড কোয়েরসেটিন, ভিটামিন মিনারেলস এবং প্রদাহনাশক উপাদান। তাই পিঁয়াজের কটু গন্ধের জন্য একে দূরে না সরিয়ে রেখে আপন করে নিতেই পারেন দাঁতের ব্যথা উপশমের কাজে।
পিঁয়াজের রস হালকা গরম করে ব্যথাযুক্ত দাঁতে লাগান।আর দাঁত ব্যাথাকে ভ্যানিশ করুন নিমিষেই।
★মরিচঃ অবাক লাগছে? ভাবছেন ঝাল দিয়ে ব্যথা উপশম!!! জ্বি ঠিন তাই। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে মরিচে (বিশেষত লালমরিচে) থাকা ক্যাপসিনিন উপাদান অ্যান্টি-ইনফ্ল্যাম্যাটরি উপাদান হিসেবে কাজ করে।
সামান্য মরিচ গুঁড়া ও অল্প একটু পানি দিয়ে পেস্ট তৈরী করে ব্যথাযুক্ত স্থানে লাগান। মরিচের ব্যথানাশক উপাদান ব্যথা কমিয়ে অবশতার সৃষ্টি করে ব্যথা থেকে আরাম দেয়। ঝাল প্রেমীদের এই টোটকা টি জব্বর পছন্দ হবে আশা করি।
★ কালোজিরাঃ কালোজিরার ঔষধি গুণের কথা বলে হয়ত শেষ করা যাবেনা বলেই একে “কালো হিরা” বলা হয়েছে। এতে উপস্থিত থাইমোকুইনোন প্রদাহনাশক হিসেবে কাজ করে এবং তাই দাঁত ব্যথাতেও রয়েছে কালোজিরার অত্যাশ্চর্য ভূমিকা।

পরিমানমত পানিতে কয়েক চামচ কালোজিরা নিয়ে ফুটিয়ে নিন। পানির তাপমাত্রা কমে উষ্ণ অবস্থায় এলে তা দিয়ে কুলকুচি করে নিন। নিয়মিত ব্যবহারে চমৎকার ফল পাবেন ইনশাআল্লাহ এতে কোনো সন্দেহ নেই।
উপরিউক্ত টোটকাগুলোর দৈনিক ব্যবহারে তখনই ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে যখন আমরা দাঁতের প্রতি যথাযথ যত্নশীল হবো। তাই শুধু দাঁতব্যথাই নয়, দাঁতের ছোটখাটো যেকোনো সমস্যা দেখা দিলেই অবহেলা না করে ডেন্টিস্টের সাথে পরামর্শ করুন এবং সেইসাথে নিয়মিত ডেন্টাল চেক-আপ করুন।
দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম বুঝুন, সুস্থ থাকুন।
লেখাঃতামান্না জাহান
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান

4,421 total views, 2 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *