করোনা প্রতিরোধে সঠিক তথ্য প্রচারে জানুন আপনার কি করণীয়


কোভিড-১৯ নিয়ে আতঙ্ক দিন দিন বেড়েই চলেছে। ইন্টারনেট, ফেসবুক, বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ছড়াচ্ছে নানা রকম সংবাদ, গুজব। মানুষ হচ্ছে দ্বিধাগ্রস্ত। অনেকে ভুল নিয়ম মেনে পা বাড়াচ্ছে ভুল পথে। এর লক্ষণ সম্পর্কে নানা রকমের ভুল তথ্যে মানুষের মধ্যে বাড়ছে আতঙ্ক। কোভিড-১৯ প্রতিরোধেও মানুষ অনুসরণ করেছে নানারকম পন্থা।

যেকোন মহামারীর মোকাবিলা করতে সবার আগে দরকার সঠিক তথ্য জানা এবং সেই অনুসারে পদক্ষেপ নেওয়া। যেকোনো ভুল তথ্য, তা সে যত ছোটই হোক না কেন, আমাদের করতে পারে বিপদের সম্মুখীন।কোভিড-১৯ সংক্রান্ত যেকোন তথ্যের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য উৎস বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (WHO)। পুষ্টি বার্তার পক্ষ থেকে WHO থেকে প্রাপ্ত কোভিড-১৯  সংক্রান্ত যেকোন তথ্য আপনাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।

কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস কী?

করোনা ভাইরাস হচ্ছে এমন কিছু ভাইরাস যারা মানুষ এবং প্রাণীদের মধ্যে নানাধরনের রোগ সৃষ্টি করে থাকে। মানুষের মধ্যে এরা শ্বাসতন্ত্রের নানা ধরনের প্রদাহজনিত রোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী। সাধারণ সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে বিগত বছরে আসা মার্স (MERS) ও সার্স (SARS)  এর মতো মারাত্মক কিছু রোগের জন্য এরা দায়ী। ২০১৯-২০ সালে যে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে তার নাম কোভিড-১৯।

কোভিড-১৯ এর লক্ষণ বা উপসর্গ কী?

কোভিড-১৯ এর সাধারণ উপসর্গগুলো হলো-

  • জ্বর
  • ক্লান্তিবোধ করা ও
  • শুষ্ক কাশি

কিছু রোগীদের মধ্যে অন্যান্য উপসর্গও দেখা দেয় যেমন- 

  • শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে ব্যথা
  • নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া
  • নাক দিয়ে পানি পড়া
  • গলা ব্যথা
  • ডায়রিয়া

কিছু রোগীরা এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হওয়া সত্ত্বেও কোন রকম অসুস্থতা বোধ করে না বা উপরের কোন উপসর্গই তাদের মধ্যে দেখা দেয় না। 

সুস্থ থাকতে করণীয় কী কী?

কোভিড-১৯ ভাইরাসটি ড্রপলেটের মাধ্যমে ছড়ায়। এটি বায়ুবাহিত বা পানিবাহিত নয়। তাই এর সংক্রমণ তখনই হয় যখন কোন সুস্থ মানুষ কোন অসুস্থ মানুষের সংস্পর্শে আসে। 

 

WHO এই রোগের সংক্রমণ বন্ধে ৭টি নির্দেশনা জারি করেছে। এগুলো হল-

১। নিয়মিত হাত ধোয়া। সাবান পানি দিয়ে হাত মুখ ধুয়ে তা পরিষ্কার রাখতে হবে। হাতের কাছে সাবান-পানি না থাকলে অ্যালকোহল যুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা হ্যান্ড রাব দিয়ে হাত ধুতে হবে। সাবানপানি বা অ্যালকোহল যুক্ত হ্যান্ড রাব হাতে থাকা ভাইরাসকে মেরে ফেলে
২। যেহেতু কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে সবসময় উপসর্গ দেখা দেয় না। তাই যেকোনো মানুষের থেকে কমপক্ষে ১মিটার (২ হাত) দূরত্ব বজায় রাখা শ্রেয়।
৩। হাত ধোয়া না থাকলে সেই হাত দিয়ে চোখ, নাক এবং মুখ স্পর্শ করে থেকে বিরত থাকতে হবে কেননা নানাভাবে টাকা, লিফটের বাটন, সিড়ির রেলিং, দরজার হাতল, তালা, বাজারের পণ্য ইত্যাদির উপর এই ভাইরাস থাকতে পারে যা হাতে লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। এই ভাইরাস যুক্ত হাত দিয়ে  চোখ, নাক এবং মুখ স্পর্শ করলে তা দিয়েই এই ভাইরাস দেহে প্রবেশ করে।
৪। হাচি-কাশি দেওয়ার সময় মুখ কনুই দিয়ে বা টিস্যু দিয়ে ঢেকে হাচি-কাশি দিতে হবে। এবং ব্যবহৃত টিস্যু সাথে সাথে ডাস্টবিনে ফেলে  দিতে হবে। যারা অসুস্থ তাদের সর্বদা মাস্ক পড়তে হবে যাতে সুস্থ কেউ আক্রান্ত না হয়।
৫। সর্দি-কাশি হলে বা জ্বর আসলে বা সামান্য অসুস্থতা বোধ করলেও ঘরে থাকতে হবে।
৬।শ্বাস নিতে কষ্ট হলে বাড়ি থেকেই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
৭। গুজবে কান না দিয়ে শুধুমাত্র সঠিক তথ্যে বিশ্বাস রাখতে হবে।
আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় খুব সহজেই  কোভিড-১৯ প্রতিরোধ করা সম্ভব এবং পৃথিবী থেকে এটি নির্মূল করা সম্ভব। এর জন্য দরকার সঠিক উৎস থেকে সঠিক তথ্য জানা এবং সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
লেখক-  সৃজনী মণ্ডল
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ
সম্পাদনাজান্নাতুল তাবাসসুম
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ    

1,153 total views, 2 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *