ঘরবন্দী হয়ে থাকতে ভালো লাগছে না?? মেনে চলুন এই নিয়ম গুলো

কোভিড -১৯ এর সংক্রমণের জন্য আমাদের নিজেদের নিরাপত্তার জন্য ঘরে আবদ্ধ থাকতে থাকতে “আর
ভালো লাগে না” কথাটা প্রতিদিন ঘুম থেকে ওঠার পর হতে ঘুমাতে যাবার আগ পর্যন্ত শুনতে হয়। পরিবার,
আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু – বান্ধব প্রত্যেকের মুখ থেকে যেমন শুনতে হচ্ছে, তেমন বাধ্য হয়ে বলতেও হচ্ছে।
এই ভয়াবহ সময়ে ঘরে আবদ্ধ থেকে সবাই বিরক্তি হবে, পরিস্থিতি বিশেষে দুশ্চিন্তা বাড়বে, আতঙ্কগ্রস্ত
অবস্থায় হতাশাও মনে আসতে পারে — এমন হওয়া খুবই স্বাভাবিক।
কিন্তু আমাদের এই পরিস্থিতিকে সামাল দিতে হবে। আর দুশ্চিন্তা নয়। আমাদের মনোবল শক্ত করতে হবে
এবং কিছু পন্থা অবলম্বন করলে আশা করি সময় খারাপ কাটবে না।

১। আল্লাহ ভরসা ও নিয়মিত প্রার্থনা
প্রথম কথা আমাদের মহান সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা রাখতে হবে, প্রত্যেকের ধর্ম অনুযায়ী নিজ নিজ
প্রার্থনা করতে হবে।

২। মেডিটেশন
প্রতিদিন কয়েক মিনিট করে মেডিটেনশন করতে পারেন। গবেষণা করে জানা গেছে মেডিটেনশন করলে আপনার ব্রেইনের নিউরাল পাথওয়ে পরিবর্তন হতে পারে যা মস্তিষ্ককে স্ট্রেস থেকে মুক্তি দেয়।
পদ্ধতি খুবই সহজ। ৫ মিনিটের বিরতি নিন। মেঝেতে পা রেখে সোজা হয়ে বসুন। আপনার চোখ বন্ধ করুন।
আস্তে আস্তে আপনার নাক দিয়ে শ্বাস নিন, অনুভব করুন যে শ্বাস আপনার পেটে শুরু হয়ে আপনার মাথার শীর্ষে চলে যায়। আপনার মুখ দিয়ে শ্বাস ছাড়ার সাথে সাথে প্রক্রিয়াটি বিপরীত হবে।
উচ্চারণ বা নিঃশব্দ – আবৃত্তিতে আপনার দৃষ্টি নিবদ্ধ করুন। একটি ইতিবাচক মন্ত্র যেমন “আমি শান্তিতে
আছি” বা “আমি নিজেকে ভালবাসি।” শ্বাসের সাথে মন্ত্রটি সিঙ্ক করতে করতে আপনার পেটে এক হাত রাখুন।
এভাবে কয়েক মিনিট করুন।
৩। স্লো ডাউন
৫ মিনিট সময় নিন এবং সচেতনতার সাথে কেবল একটি আচরণের দিকে মনোনিবেশ করুন। আপনি যখন হাঁটছেন তখন আপনার শ্বাস কেমন অনুভূত হচ্ছে এবং আপনার পা কীভাবে মাটিতে আঘাত করছে তা লক্ষ্য করুন কিংবা খাবারের প্রতিটি কামড়ের টেক্সচার এবং স্বাদ উপভোগ করুন। আপনি যখন এভাবে সময় ব্যয় করবেন এবং আপনার ইন্দ্রিয়গুলিতে মনোনিবেশ করবেন তখন আপনি কম উত্তেজনা বোধ করবেন।
৪। সামাজিক নেটওয়ার্ক
আপনার সামাজিক নেটওয়ার্ক স্ট্রেস পরিচালনা করার জন্য আপনার সেরা উপায়গুলির মধ্যে একটি। অন্যের সাথে কথা বলুন – তার সাথে শেয়ার করুন। আপনার সংযোগটি শক্তিশালী রেখে আপনি একটি নতুন দৃষ্টিভঙ্গি পেতে পারেন।
৫। ব্যায়াম

ইয়োগা এবং হাঁটা সহ সমস্ত ধরণের অনুশীলনগুলি মস্তিষ্কের মুক্ত অনুভূতিতে ভাল সাহায্য করে এবং
আপনার শরীরকে স্ট্রেস মোকাবেলা করার অনুশীলন করার সুযোগ দিয়ে হতাশা এবং উদ্বেগকে সহজে দূর
করতে পারে।


৬। আপনার আশীর্বাদগুলির জন্য কৃতজ্ঞ হোন আর নেতিবাচক চিন্তাভাবনা এবং উদ্বেগগুলি মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন।
৭। এক্ষেত্রে কিছু খাবার অনেক সহায়তা করতে পারে।
ক) ভেষজ চা উষ্ণতা এবং শান্তির অনুভূতিতে সহায়তা করে।


খ) ডায়েটে ডার্ক চকোলেট তার রাসায়নিক প্রভাব এবং এর সংবেদনশীল প্রভাবের মাধ্যমে দুটি উপায়ে স্ট্রেস হ্রাস করতে পারে।
গ) স্ট্রেস থেকে বিরত থাকার জন্য মাছ আপনার হৃদয়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে।
ঘ) গরম দুধ আপনাকে রাতের উত্তম ঘুম পেতে সহায়তা করতে পারে, স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট সহায়তা করে।
ঙ) বাদাম স্ট্রেস কমাতে দুর্দান্ত কাজ করে এবং এগুলি স্বাস্থ্যকর ফ্যাটে সমৃদ্ধ।
চ) সাইট্রাস ফল বা টকজাতীয় ফল এবং স্ট্রবেরিতে ভিটামিন সি রয়েছে, যা স্ট্রেসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহায়তা করে।
ছ) উচ্চ আঁশ সমৃদ্ধ খাবারও হতাশা দূরীকরণে বেশ উপকারী।
৮। আর নিজেকে ব্যস্ত রাখুন আপনার পছন্দের কাজ করে।
৯। পছন্দের হাদিসের বই, গল্প, উপন্যাস, নাটক ইত্যাদি পড়তে পারেন।

ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশগুলো মেনে চলুন আর এই পরিস্থিতিতে ঘরে
থেকে নিজে নিরাপদ থাকুন, অন্যদেরও নিরাপদে রাখুন।
ধন্যবাদ।

লেখক-
আছিয়া খাতুন মিম
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ
সম্পাদনা-
খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগ

1,235 total views, 6 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *