গরমের দিনে লেবুর যত গুনাগুন !

লেবু পানির উপকারিতা

প্রাকৃতিক খাদ্য উপাদানগুলো একদিকে যেমন স্বাস্থ্যসম্মত অন্যদিকে শরীরের সুস্থতার জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ। লেবু তেমন ই একটি উপাদান। ভিটামিন-সি এর প্রসঙ্গ আসলেই আমরা লেবু জাতীয় ফলের কথা । কিন্তু লেবুতে শুধুমাত্র ভিটামিন-সি নয়, আছে আরও অনেক উপাদান। এ উপাদানগুলো নানাভাবে আমাদের দেহে কাজ করে। সাধারনত দেখা যায় যে ঠোঁটে বা মাড়িতে ঘা, রক্তক্ষরন হলে আমরা বলি যে,”তোমার তো ভিটামিন-সি এর অভাব, লেবু খাও।” হ্যাঁ এটা সত্য যে লেবুতে ভিটামিন-সি আছে এবং লেবু ঠোঁট বা মাড়ির সুস্থতায় অনেক প্রয়োজনীয়। শুধু তাই নয়, লেবু আমাদের দেহে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আসুন জেনে নেই আমাদের শরীরে লেবুর উপকারিতা-

১)ক্ষতস্থান সারিয়ে তুলতে সাহায্য করেঃ লেবুতে অ্যাসকরবিক এসিড থাকায় যেকোন ক্ষতস্থান সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে, ব্যাথা উপশম করে।

২)লৌহ শোষণে সহায়তাঃ ভিটামিন-সি দেহে লৌহ শোষণে সহায়তা করে।তাই দৈনিক আহারে লেবু দেহে লৌহের শোষণ ত্বরাণ্বিত করে।আর যেহেতু লৌহ এর অভাবে রক্তস্বল্পতা সহ চুল পড়ার মতো সমস্যা দেখা যায় তাই লেবু সেবন জরুরী।

৩)এ্যন্টি-বায়োটিক হিসেবে কাজ করেঃ লেবুতে প্রচুর পরিমানে সাইট্রিক এসিড, ক্যালসিয়াম ও লিমলিন থাকে যা এ্যন্টি-বায়োটিক হিসেবে কাজ করে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

লেবু চা

৪)হজমে সাহায্যঃ লেবুর রস হজমে সাহায্য করে ও পিত্তরস উৎপাদনে সাহায্য করে। ফলে পেটের জ্বালা-পোড়া ও বদহজম থেকে রেহাই পাওয়া যায়।
৫) কিডনি পাথর গঠনে বাধাঃ লেবুতে সাইট্রিক এসিড ও এসকরবিক এসিড (ভিটামিন সি) এর সুষম মিশ্রণ থাকে। বিভিন্ন ধরনের কিডনী পাথরগুলোর মধ্যে একটি “ক্যালসিয়াম অক্সালেট জাতীয়’’ পাথর গঠনে লেবুর উপাদান সাইট্রিক এসিড বাঁধা দেয়।

৬)ভিটামিন-সি এর ভাল উৎসঃ লেবু ভিটামিন-সি এর ভাল উৎস বলে সর্দি-কাশি, জ্বর, পাকস্থলী ও হৃদপিন্ড এর বিভিন্ন রোগ, ব্যাকটেরিয়াজনিত রোগ ও হাইপার টেনশনে ভাল উপকার দেয়।

৭) রক্তনালী পরিষ্কার ও শক্তিশালী করেঃ অতিরিক্ত খাদ্যগ্রহণ, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের কারনে রক্তনালীতে চর্বি ও খনিজ পদার্থ এক হয়ে প্লাক জমে । এ থেকে গুরুতর সমস্যা হতে পারে, তাই এটি প্রাথমিক অবস্থাতেই নির্মূল করা উচিত। লেবু এর সাইট্রিক এসিড প্লাক দূর করে ও অন্যান্য ভিটামিন রক্তনালীসমূহকে শক্তিশালী করে।

৮)লেবু শাঁসে পর্যাপ্ত পরিমানে পেকটিন ফাইবার আছে যা ওজন নিয়ন্ত্রন করতে ভূমিকা রাখে। বিশেষ করে প্রতিদিন লেবু-পানি খেলে ওজন হ্রাস পায় যা গবেষণায় প্রমাণিত।

৯)চর্বি কমাতেঃ লেবুর রস গরম পানি দিয়ে প্রতিদিন সকালে পান করলে অন্ত্রের কার্যক্রম ঠিক থাকে এবং অতিরিক্ত চর্বি কমিয়ে ফেলে।

১০)স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধঃ লেবুর ভিটামিন সি ঘাটতি জনিত স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধ করে।
লেমন টি

এন্টি অক্সিডেন্ট

১১)বলিরেখা দূরঃ ভিটামিন-সি বলিরেখা দূর করতে এবং শরীর থেকে ক্ষতিকর টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে। আর লেবু ভিটামিন-সি এর উৎকৃষ্ট উৎস।

১২)বিভিন্ন রোগেঃ লেবু ব্লাড গ্লুকোজ কমিয়ে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে সাহায্য করে এবং রক্তনালীকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে অ্যাজমা রোগীর শ্বাসকষ্ট কমায়।

১৩)হরমোনের কার্যকারিতা বৃদ্ধিতেঃ হরমোন সক্রিয়করনে ভিটামিন-সি তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখে আর লেবুতে আছে ভিটামিন-সিসহ আরও অন্যান্য ভিটামিন ও মিনারেলস।

১৪)এসিড ও ক্ষারের ভারসাম্য রক্ষায়ঃ আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য রক্তের এসিড ও ক্ষারের ভারসাম্য(pH 7.35 – 7.45) থাকা জরুরী। লেবুর পানি শরীরের পি.এইচ (pH) ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

১৫)ক্যান্সার বিরোধীঃ লেবুতে ২২ ধরনের ক্যান্সার বিরোধী যৌগ আছে যা ক্যান্সারের ঝুকি কমিয়ে দেয়।

ভিটামিন সি ও অন্যান্য খনিজ

১৬)উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রনেঃ লেবুতে রয়েছে পটাসিয়াম যা উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে সহায়তা করে।

১৭)বিষন্নতা ও মানসিক চাপ দূরঃ লেবু-পানিতে আছে এন্টি অক্সিডেন্ট যা বিষন্নতা ও মানসিক চাপ দূর করে মনকে প্রফুল্ল করে নিমিষেই শরীরের সকল ক্লান্তি দূর করে।

১৮)মাথাব্যাথা প্রশমনেঃ লেবু মাথাব্যাথা প্রশমনের ক্ষেত্রে কার্যকরী উপাদান। গরম পানির সাথে লেবুররস মিশিয়ে পান করলে মাথাব্যথার তীব্রতা হ্রাস পায়।

১৯)মুখের দূর্গন্ধ দূর করে: লেবু মুখের ঘা সারাতে সাহায্য করে, মাড়ির ফোলাভাব কমায়, মুখের দূর্গন্ধ দূর করে, দাঁত ব্যথা উপশম করে।

২০)মস্তিষ্কের বিভিন্ন অসুস্থতায়ঃ লেবুর ছিলকায় ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ট্যানজেরেটিন বিদ্যমান যা মস্তিষ্কের অসুখ যেমন পারকিনসনস্ রোগের ক্ষেত্রে উপকারী ভূমিকা রাখে।

২১)লেবু অন্ত্রের কৃমি ধ্বংস করতে সাহায্য করে।

আমাদের দেহের জন্য দৈনিক অন্তত ৪৫-৫০ মি গ্রা ভিটামিন-সি প্রয়োজন যার যোগান দিতে পারে দৈনিক আহারে এক টুকরো লেবু। লেবু আমাদের জন্য একটি সহজলভ্য খাদ্য। তাই এর যথাযোগ্য সেবন এর মাধ্যমে যদি আমরা এতগুলো উপকার পাই তবে আমরা কেন লেবু দৈনিক খাদ্য তালিকায় রাখব না বলুন তো?

লেখক-
জিনাতুল-জাহরা-ঐশী
খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান।

4,002 total views, 2 views today

Any opinion ..?

Posted by pushtibarta

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *